যে চিন্তাগুলো মাথা থেকে ঝেড়ে ফেললে আপনিও পাবেন চাকরি।


যে চিন্তাগুলো মাথা থেকে ঝেড়ে ফেললে আপনিও পাবেন চাকরি। (Motivational speech)
(Motivational speech)
প্রথমত আমাকে সরকারি চাকরি করতেই হবে আমাদের দেশের অধিকাংশ যুবক বা যুবতীর চিন্তা থাকে আমাকে যে করে হোক সরকারি চাকরিই করতে হবে৷

সরকারি চাকরি পাওয়ার জন্য দেখা যায় অর্থ দিতেও কুন্ঠাবোধ করে না। বাপের শেষ সম্বলটুকু বিক্রি করে সরকারি চাকরি পাওয়ার চেষ্টা করে।

একটা সময় দেখা যায় সরকারি চাকরির পিছে ছুটতে ছুটতে বেসরকারি চাকরিটাও আর পাওয়া হয় না।

তাই সরকারি চাকরির খোঁজার পাশাপাশি যে কোন একটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি নিয়ে নেওয়া ভালো।

আরও পড়ুন – কালো মেয়ের উপাখ্যান

দ্বীতিয়ত আমি কেন অন্যের গোলামি করবো?
এখনো আমাদের দেশের একাংশ মানুষের ধারনা চাকরি মানে অন্যের গোলামি করা।

অনেকের বাবা মাও তাদের সন্তানদের অন্যের অান্ডারে চাকরি করতে নিরুৎসাহিত করে। বলে আমার এত সম্পত্তি আছে আমার ছেলে কেন অন্যের গোলামি করবে?

যদিও এখন এই চিন্তাভাবনার মানুষের সংখ্যা অনেক কমে গেছে।

তৃতীয়ত এত পড়াশোনা করে কেন এই চাকরি করবো। ভাই বৈধ পথে অর্থ আসে এমন যে কোন ধরনের কর্মই ভালো। আপনি যদি ভেবে থাকেন অর্নাস, মাস্টার্স পাশ করে ছোট কোন চাকরি করবেন না। তাহলে হয়তো আপনার চাকরি পেতে অনেক সময় লেগে যেতে পারে। ছোট থেকে শুরু করেন একসময় দেখবেন অনেক দূর চলে গেছেন।

আপনি নিজে একটা পরিসংখ্যান করে দেখেন পৃথিবীতে কত মানুষ আছে যারা একদম ক্ষুদ্র পরিসর থেকে এত দূরে এসেছে।

অনেকে অন্যর দ্বারা বা সমাজের কিছু মানুষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে চাকরি করতে চায় না। অনেকে বোঝায়

> তুই অনেক ভালো ছাত্র তুই কেন এই চাকরি করবি তোর জন্য অনেক ভালো কিছু অপেক্ষা করছে পরে দেখা যায় আম ও যায় ছালা ও যায় তাই নিজের মন যেইটা বলে সেইটা করেন।

> তোর বাপের এত জমি জায়গা এত বড় ব্যবসা তুই কেন চাকরি করবি সব তো তোর। তোর অন্য মানুষের আন্ডারে চাকরি করতে হবে কেন?

আপনাকে এমন ঞ্জান দেওয়া লোকের বা বন্ধুর অভাব হবে না। বিশ্বাস করেন যারা আপনাকে এই ধরনের ঞ্জান দেবে তারা একটাও কাজের মানুষ না।

তারা নিজেরাতো সবখানে ব্যার্থ চাইবে আপনিও যেন ব্যার্থ হোন।

তাই আপনি তাদের কথাই শুনবেন যারা আপনার শুভাকাঙ্ক্ষী।

ধন্যবাদ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য। আশা করি কথাগুলো আপনার ভালো লেগেছে। ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে। আর মনে কোন প্রশ্ন থাকলে বা কোন প্রশ্নের উত্তর জানলে যোগ দিন আমাদের প্রশ্ন উত্তর পেজে।
সুস্থ থাকুন নিরাপদে থাকুন।

লেখক – আর কে আসিফ খান

Related Articles  জেনে নিন ঘূর্নিঝড়গুলোর নাম কীভাবে ঠিক করা হয় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *